জাদরানের ব্যাটিং নৈপুন্যে উড়ন্ত সূচনা আফগানিস্তানের

নজিবুল্লাহ জাদরানের ব্যাটিং নৈপুন্যে জয় দিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করলো আফগানিস্তান। জাদরানের ৩০ বলে অপরাজিত ৬৯ রানের সুবাদে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় ও নিজেদের প্রথম ম্যাচে আজ আফগানরা ২৮ রানে হারায় জিম্বাবুয়েকে।
মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং-এ নামে জিম্বাবুয়ে। ব্যাট হাতে উড়ন্ত সূচনা করে আফগানিস্তানের দুই ওপেনার রহমানউল্লাহ গুরবাজ ও হযরতউল্লাহ জাজাই। ৩৪ বল মোকাবেলা করে ৫৭ রানের জুটি গড়েন তারা। ১৩ রান করা জাজাইকে ফিরিয়ে দিয়ে জিম্বাবুয়েকে প্রথম সাফল্য এনে দেন জিম্বাবুয়ের পেসার তেন্ডাই চাতারা।
জাজাইকে হারানোর পরের ওভারেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন মারমুখী মেজাজে থাকা গুরবাজ। বাঁ-হাতি স্পিনার সিন উইলিয়ামসের শিকার হওয়ার আগে ৫টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৪ বলে ৪৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন গুরবাজ।
৬০ রানের মধ্যে দুই ওপেনারের বিদায়ের পর মিডল-অর্ডারে দুই ব্যাটসম্যানও দ্রুত ফিরেন। বড় ইনিংস খেলতে পারেননি নাজিব তারাকাই ও আসগর আফগান। দু’জনই ১৪ রান করে ফিরলে ১৩ দশমিক ২ ওভারে ৪ উইকেটে ৯০ রানে পরিণত হয় আফগানিস্তান।
উইকেটে গিয়েই জিম্বাবুয়ের বোলারদের উপর ঝড় তোলেন পাঁচ নম্বরে নামা বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান জাদরান। মাত্র ২১ বলে হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন তিনি। এতে বড় সংগ্রহের পথে হাটতে থাকে আফগানিস্তান। ৫টি চার ও ৬টি ছক্কায় ৩০ বলে অপরাজিত ৬৯ রান করেন জাদরান। জাদরানের সাথে তাল মিলিয়ে ঝড়ো গতিতে রান তুলেছেন মোহাম্মদ নবী। ৪টি ছক্কায় ১৮ বলে ৩৮ রান করেন নবী। জিম্বাবুয়ের চাতারা-উইলিয়ামস ২টি করে উইকেট নেন।
জয়ের জন্য ১৯৮ রানের বড় লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে জিম্বাবুয়ে। স্কোর বোর্ডে ৪৪ রান উঠতেই চার ব্যাটসম্যান প্যাভিলিয়নে ফিরে যান। পরবর্তীতে শুরুর ধাক্কা সামলে উঠেন দুই মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান টিনোটেন্ডা মুতোমবদজি ও রায়ান বার্ল। বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩২ বলে অপরাজিত ৫৭ রান করা বার্ল আজও ২টি ছক্কায় বড় ইনিংস খেলার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু ব্যক্তিগত ২৫ রানে থেমে যান তিনি। ২০ রানের বেশি করতে পারেননি মুতোমবদজি। দু’জনই শিকার হন আফগানিস্তান অধিনায়ক রশিদ খান। এ দু’জনের বিদায়ে ৯৬ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ হারের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় জিম্বাবুয়ে।
তবে শেষদিকে ঝড়ো ইনিংস খেলে জিম্বাবুয়ের হার ব্যবধান কমিয়েছেন রেগিস চাকাভা। ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ২২ বলে অপরাজিত ৪২ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৬৯ রান করতে সমর্থ হয় জিম্বাবুয়ে। আফগানিস্তানের রশিদ ও ফরিদ আহমেদ ২টি করে উইকেট নেন।